আজ | শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০
Search

টাইগার হিলে কিছু সময়

মেঘ বরফের সান্নিধ্যে ক’দিন : চতুর্থ পর্ব

লতিফুল হক মিয়া | ১২:৩৩ অপরাহ্ন, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

chahida-news-1582806406.jpg
ছবিটি ইন্টারনেট থেকে সংগৃহিত

মেঘ বরফের সান্নিধ্যে ক’দিন :: তৃতীয় পর্ব এর পরের অংশ

দার্জিলিংয়ের টাইগার হিলে লেখকসহ অন্যান্যরা।

১৪ ডিসেম্বর সকালে দার্জিলিংয়ের আকাশটা মোটেই ভালো না। টিপ টিপ বৃষ্টি শুরু হয়েছে আগের দিন সন্ধ্যায়। সকালে বৃষ্টির সাথে যোগ হয়েছে তীব্র কুয়াশা। এদিন আমরা সিকিমের রাজধানী গ্যাংটকের উদ্দেশ্যে যাত্রা করব। তবে তার আগে আমরা যাব টাইগার হিল ও পিস প্যাগোডাই। টাইগার হিলে যেতে চাইলে সাধারণত ভোর ৪টার দিকে রওনা দিতে হয়। বৃষ্টির কারণে আমরা আর ওই সময়ে যেতে পারিনি। সিদ্ধান্ত হলো সকাল ১০টার দিকে যাবো টাইগার হিলে। যাবার আগে নাস্তা সেরে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। নাস্তা তৈরি করতে সময় লাগবে এক ঘণ্টা। একটি রেস্টুরেন্টে নাস্তা তৈরির অর্ডার দিয়ে এই ফাঁকে গেলাম কেএফসিতে। সেখান থেকে যাত্রাপথে নাস্তার জন্য নিলাম চিকেন বার্গার। বার্গার নিয়ে গেলাম হালকা কিছু কেনাকাটা করতে। 

দার্জিলিংয়ের জাপানিজ টেম্পল।

এরপর গেলাম রেস্টুরেন্টে নাস্তা করতে। নাস্তা শেষ করে গেলাম হোটেলে। হোটেল কর্তৃপক্ষ জানাল শহর থেকে ১১ কিলোমিটার দূরে টাইগার হিলে যাবার গাড়ি আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। বৃষ্টির বাঁধা উপেক্ষা করে প্রথমে গেলাম ‘পিস প্যাগোডা’য়। এটি অসাধারণ।

দার্জিলিংয়ের জাপানিজ টেম্পল।

কিন্তু বৃষ্টি ও কুয়াশায় সৌন্দর্য ভালো উপভোগ করতে পারলাম না। এরপর গেলাম সাড়ে ৮ হাজার ফুট উচ্চতায় অবস্থিত টাইগার হিলে। যেখান থেকে দেখা যায় কাঞ্চনজঙ্ঘার অপরূপ সৌন্দর্য। পরিতাপের বিষয় বৃষ্টি ও কুয়াশার দরুণ কিছুই দেখতে পেলাম না। তখন ওখানে প্রচন্ড শীত। হিমাংকের কাছাকাছি তাপমাত্রা। তাই বেশি সময় ব্যয় না করে ফিরে গেলাম হোটেলে। হোটেল ম্যানেজার আমাদের জানালেন, সিকিম যাবার গাড়ি আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে। তাই আমাদের লাগেজ গুছিয়ে চলে এলাম হোটেলের লবিতে। ভ্রমণ প্যাকেজের নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা দিলাম হোটেল কর্তৃপক্ষকে। সেই সাথে অতিরিক্ত ২০০ রুপি দিতে হলো ক্যাবল কার এলাকায় গাড়ি পার্কিং বাবদ ও হোটেল থেকে পুলিশ স্টেশনে তথ্য সরবরাহের ফরমের জন্য মাথা পিছু ৫০ রুপি। যদিও ট্যুর কোম্পানীর সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছিল আমাদের কোনো অতিরিক্ত অর্থ দিতে হবে না। 

(চলবে...)           

আরও পড়ুন:  প্রথম পর্ব, দ্বিতীয় পর্বতৃতীয় পর্ব, : চতুর্থ পর্ব, পঞ্চম পর্বষষ্ঠ পর্ব এবং শেষ পর্ব

  

আপনার মন্তব্য লিখুন